কোহলির সমর্থন করে সৌরভের চূড়ান্ত সমালোচনা করলেন সলমন বাট

দক্ষিণ আফ্রিকা উড়ে যাওয়ার আগে টেস্ট ক্যাপ্টেন বিরাট কোহলি মিডিয়ার সামনে বিস্ফোরণ ঘটান। তারপর থেকেই এই বিরাট বনাম বিসিসিআই দ্বন্দ্বের সূত্রপাত। যা অব্যাহত।

এবার এই ইস্যুতে প্রতিক্রিয়া রাখলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক সলমন বাট । নিজের ইউটিউব চ্যানেলে কোহলির সমর্থন করে সৌরভের চূড়ান্ত সমালোচনা করেছেন তিনি।

সদ্য ওয়ানডে ক্যাপ্টেনসি খোয়ানো বিরাটের নিশানায় ছিলেন বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। বোর্ড সভাপতির দিকে পরোক্ষ ভাবে আঙুল তুলে কোহলি দাবি করেন যে, তাঁকে টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়কত্ব ছাড়তে কেউ বারণ করেননি।

পাশাপাশি কোহলি এও বলেন যে, দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট দল ঘোষণার মাত্র ৯০ মিনিট আগে তিনি জানতে পারেন যে, টি-২০ ফরম্যাটের পর ওয়ানডে ফরম্যাটেও অধিনায়ক হিসাবে তাঁর পথচলা শেষ হচ্ছে।

বিসিসিআই সেভাবে বিরাটের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি বলেও অভিযোগ করেন ভারতের টেস্ট অধিনায়ক। এরপর থেকেই এই ইস্যু আগুনের গতিতে ছড়িয়ে পড়েছে। সৌরভ বলেছেন যে, এই ব্যাপারে তিনি কোনও মন্তব্যই করতে চান না।

বাট বলেন, “আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি কোহলির কথাবার্তা অত্যন্ত স্বচ্ছ। ও বলেছেন, যে টেস্ট দল নির্বাচনের দেড় ঘণ্টা আগে ওকে বলা হয় যে, ও আর ওয়ানডে অধিনায়ক থাকবে না। অনেকে বলতেই পারেন যে, নির্বাচকরা বলতে বাধ্য নন। আমি সেটা জানি না।

কিন্তু দেখুন কার ব্যাপারে কথা হচ্ছে। শেষ কয়েক বছরে ও সেরকমই একজন প্লেয়ার যাঁদের ক্রিকেটের ওপর দলের সাফল্য নির্ভর করেছে। সৌরভের অধিনায়কত্বের ব্যাটন যায় ধোনির হাতে, সেখান থেকে পান কোহলি।

ওঁর অবদান কোনও অংশে কম নয়। ভারতের ক্রিকেট ইতিহাসে যে বড় নামগুলি রয়েছে, তার মধ্যে কোহলি অন্যতম। ও একজন ম্য়াচ উইনারও।

কোহলি কিন্তু আর পাঁচজনের মতো নয়। ও ফারাক গড়ে দেয়। কোহলি শুধু ভারতেরই নন, বিশ্বের এক নম্বর প্লেয়ারও। বিগত দুই বছরে ও হয়তো নিজের সেরাটা দিতে পারছে না।

তাও ওর ধারে কাছে কেউ নেই।” বাটের মুখে শোনা যায় ভারতীয় ক্রিকেটের উন্নতির কথাও। তিনি বলেন, “সৌরভ বিরাট মানের প্লেয়ার ছিলেন। আমরা সকলে সম্মান করি তাঁকে।

কিন্তু উনি কোহলির দাবি জানলা দিয়ে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছেন। সৌরভকে ভারতীয় ক্রিকেটের উন্নতির জন্য উত্তর দিতে হবে।” এখন দেখার বিসিসিআই বনাম বিরাট দ্বন্দের শেষ হয় কোথায়!

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *