কোহলির অধিনায়কত্ব ছাড়ার ১৬ ঘন্টা পর রোহিতের প্রতিক্রিয়া

টেস্ট ক্রিকেটে ভারতীয় দলের অধিনায়কত্ব ছাড়ার কথা জানানোর পরে কৌতূহল ছিল রোহিত শর্মা কী বলেন, তা নিয়ে। কোহলীর টুইটের পর প্রায় ১৬ ঘণ্টা পেরিয়ে যাওয়ার পরে প্রতিক্রিয়া দিলেন রোহিত।

রোহিত ইনস্টাগ্রামে সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়া দিয়ে লিখেছেন, তিনি বিস্মিত। রোহিত লিখেছেন, ‘বিস্মিত!! ভারত অধিনায়ক হিসেবে সাফল্যের জন্য অভিনন্দন।’ টি-টোয়েন্টি ও এক দিনের ক্রিকেটে রোহিতকেই অধিনায়ক করা হয়েছে।

সব ঠিক থাকলে টেস্টেও তাঁরই অধিনায়ক হওয়ার কথা। স্বাভাবিক ভাবেই সবার কৌতূহল ছিল, হবু অধিনায়ক সদ্য বিদায় নেওয়া নেতা সম্পর্কে কী বলছেন। বিশেষ করে কোহলীর একের পর এক অধিনায়কত্ব ছাড়ার পর্বগুলো যেখানে চূড়ান্ত নাটকীয়।

তা ছাড়া যতই দু’ জনে মুখে বলুন, তাঁদের সম্পর্ক নিয়ে কোনও সমস্যা নেই, নানা ঘটনায় বার বার এই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এর সব থেকে বড় এবং সাম্প্রতিকতম উদাহরণ চোটের জন্য রোহিতের দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে সরে যাওয়া।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাওয়ার আগে মুম্বই ক্রিকেট সংস্থার অ্যাকাডেমিতে অনুশীলন করছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। থ্রো ডাউন বিশেষজ্ঞ রঘুর একটি বল আচমকা লাফিয়ে উঠে রোহিতের গ্লাভসে লেগেছিল। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাঁকে সুস্থ মনে হলেও পরে ব্যথা বেড়েছিল।

শেষ পর্যন্ত সিরিজ থেকেই ছিটকে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু বোর্ড বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছিল, রোহিতের হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট রয়েছে। সেই জন্য দক্ষিণ আফ্রিকা যেতে পারছেন না।

তার আগে এক দিনের ক্রিকেটে কোহলীকে অধিনায়কত্ব থেকে সরানো নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়েছিল। রোহিতের চোট নিয়ে এই নাটকের পর প্রশ্ন উঠেছিল, এই বিতর্কের মধ্যে কি রোহিত এখনই কোহলীর সঙ্গে খেলতে চাইছেন না?

দক্ষিণ আফ্রিকা যাওয়ার আগে সেই বহু বিতর্কিত সাংবাদিক সম্মেলনে কোহলীকে বলতে হয়েছিল, ‘‘আমার এবং রোহিতের মধ্যে কোনও খারাপ সম্পর্ক নেই। শেষ দু’বছর ধরে এক কথা বলে বলে আমি ক্লান্ত।

একটা কথা আমি পরিষ্কার করে বলতে চাই যে, আমার কোনও সিদ্ধান্তে দলের ক্ষতি হবে না। দলকে সঠিক দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই আমার লক্ষ্য। রোহিত দারুণ অধিনায়ক এবং কৌশলগত ভাবেও পারদর্শী।

রাহুল দ্রাবিড়ের সঙ্গে জুটি বেঁধে ওরা আমার থেকে ১০০ শতাংশ বার করে নেবে। টি-টোয়েন্টি এবং এক দিনের ক্রিকেটে ওরা যে লক্ষ্য ঠিক করবে দলের জন্য, আমি সেই ভাবেই কাজ করব।’’

এমনকী নির্বাচক কমিটির প্রধান চেতন শর্মাকেও সেই সময় বলতে হয়েছিল, “কোহলী এবং রোহিতের সঙ্গে আলাদা করে বসে আলোচনার কোনও দরকারই নেই। সবই ঠিকঠাক আছে। আমি বারবার বলি জল্পনায় কান না দিতে।

ওদের মধ্যে কোনও সমস্যা নেই। ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে ওদের মধ্যে অনেক কথা হয়েছে। সব হিসেবমতোই চলছে। আপনারা যদি আমার জায়গায় থাকতেন, তা হলে দেখতে পেতেন ওরা কী ভাবে দলের স্বার্থে এক হয়ে, একটা পরিবারের মতো কাজ করে চলেছে।

দেখে খারাপ লাগে যে ওদের সম্পর্ক নিয়ে মানুষের মধ্যে এত চর্চা হয়। তাই ২০২১-এই এগুলো ফেলে আসুন। কী ভাবে সেরা দল গঠন করা যায়, সেটা নিয়ে বরং আলোচনা হোক।”

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *