জানা গেলো আসল রহস্য সৌরভ নাকি নিজের ব্যাক্তিগত কারনেই অধিনায়কত্ব ছেরেছেন কোহলি

কোহলি ২০১১ সালে টেস্ট অভিষেক করেছিলেন এবং ২০১৩ সালের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্টে শতরান করে নিজেকে একজন টেস্টে ক্রিকেটার প্রমাণ করেছিলেন।ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের মধ্যে কোহলির সেরা টেস্ট রেটিং (৯৩৭ পয়েন্ট)।

সর্বকালের সেরা টেস্ট সেঞ্চুরিয়ান বিরাট কোহলি টেস্ট অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেওয়ার পর অভিনন্দন আর শুভেচ্ছাবার্তায় ভাসছেন। সবাই ধন্যবাদ জানাচ্ছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সবচেয়ে সফল টেস্ট অধিনায়ককে। ৭ বছরের ৬৮ ম্যাচে ৪০টি জয় যে অধিনায়কের দখলে, তাঁর অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেওয়ার ব্যাপারে ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া তো হবেই।

তবে সবাই-ই বিতর্ক-টিতর্ককে একপাশে সরিয়ে রেখে কোহলির অবদানটাই ওপরে তুলে ধরছেন। সবারই কৌতূহল ছিল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী কোহলির অধিনায়কত্ব ছাড়া নিয়ে কী বলেন, সেটা নিয়ে। কিছুদিন আগেই তো ওয়ানডে অধিনায়কত্ব ছাড়ার প্রশ্নে দুজন মুখোমুখি অবস্থানে দাঁড়িয়ে পড়েছিলেন। সৌরভের সঙ্গে কোহলির সাম্প্রতিক সম্পর্কটা যে কিছুটা শীতল, সেটিও বোঝেন সবাই।

সব মিলিয়ে সৌরভের প্রতিক্রিয়া কী হয়, সেটি নিয়ে আগ্রহ ছিল সবারই। সৌরভ অবশ্য কোহলির টেস্ট অধিনায়কত্ব ছাড়ার ঘটনাটিকে ‘ব্যক্তিগত’ ব্যাপারই বলছেন। তবে তিনি টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে কোহলির অবদানকেও স্বীকার করেছেন, তাঁকে অভিনন্দিত করেছেন। গতকাল সন্ধ্যার দিকে টুইটারে ঘোষণা দিয়ে টেস্ট অধিনায়কত্ব ছাড়েন কোহলি। প্রাথমিক ধাক্কা সামলে এরপর একের পর এক টুইট করতে থাকেন সাবেক ও বর্তমান তারকারা।

ক্রিকেটসংশ্লিষ্ট সবাই কোহলির সিদ্ধান্তকে শ্রদ্ধা জানিয়ে তাঁর সাফল্যের প্রসঙ্গটি টেনেছেন। তবে সৌরভ সঙ্গে সঙ্গে কোনো প্রতিক্রিয়া জানাননি। গভীর রাতে টুইট করেছেন ভারতের আরেক সফল অধিনায়ক। সৌরভের এই দেরি নিয়েও কিছুটা কৌতূহল জেগেছে সবার। বিসিসিআই সভাপতি অপেক্ষা করে টুইট করলেও কোহলির সিদ্ধান্তের প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই টুইট করেছেন বোর্ড সচিব জয় শাহ। তিনি লেখেন, ‘টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে ভালো একটা সময় কাটাল কোহলি।

ওর নেতৃত্বে দল দেশে ও বিদেশে দুর্দান্ত খেলেছে। সে গোটা দলকেই প্রচণ্ড ফিট বানিয়ে দিয়েছে। বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডে টেস্ট জয় তো দারুণ আনন্দেরই ছিল।’ বিসিসিআইয়ের অফিশিয়াল টুইটারেও প্রতিক্রিয়া জানানো হয় কোহলির সিদ্ধান্তের প্রায় কাছাকাছি সময়েই, ‘অধিনায়ক হিসেবে দলকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে কোহলি। ৬৮ টেস্টে ৪০ জয়। দেশের সবচেয়ে সফল টেস্ট অধিনায়ক সে।’ সৌরভ লেখেন,

বিরাটের নেতৃত্বে ভারত সব ধরনের ক্রিকেটেই দ্রুত উন্নতি করেছে। অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেওয়াটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। ভবিষ্যতে দলকে আরও উঁচু জায়গায় নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে সে গুরুত্বপূর্ণ এক সদস্য হবে। দুর্দান্ত এক ক্রিকেটার সে।’

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *