দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম ওডিআইতে বাদ পরতে পারেন এই বিধ্বংসী ক্রিকেটার, দেখুন সম্ভাব্য একাদশ

টেস্ট সিরিজ ২-১ ব্যবধানে হারার পর, টিম ইন্ডিয়া পার্লের বোল্যান্ড পার্কে ১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ থেকে শুরু হতে চলা তিন ম্যাচের ওডিআই সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার মুখোমুখি হবে।

সদ্য নিযুক্ত ওয়ানডে অধিনায়ক রোহিত শর্মা চোট পেয়ে মাঠের বাইরে থাকায় এই সিরিজে দলের নেতৃত্ব দেবেন কেএল রাহুল। ২০২২ সালে এই প্রথমবার নীল রঙের জার্সিতে পুরুষ দল নামবে। ভারত শেষবার ৫০ ওভারের ফর্ম্যাটে ২০২১-এর জুলাইয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তাদের দেশে শিখর ধাওয়ানের নেতৃত্বে খেলেছিল।

রাহুল ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে মিডল-অর্ডারে ব্যাট করেছিলেন তবে এই সিরিজে শিখর ধাওয়ানের সঙ্গে তিনি ওপেনিংয়ে নামেন কিনা তা দেখার বিষয়। রুতুরাজ গায়কওয়াদ, যিনি একটি

অনবদ্য ঘরোয়া মরসুমের পরে জাতীয় দলে জায়গা পাওয়া রুতুরাজ গায়কোয়াড়কে প্রথম একাদশে জায়গা করে নেওয়ার জন্য সম্ভবত অপেক্ষা করতে হবে। জাতীয় দলে ধাওয়ানের ভবিষ্যতের জন্য সিরিজটি গুরুত্বপূর্ণ হবে।

কোহলি তাঁর স্বাভাবিক তিন নম্বর স্থানে ব্যাট করবেন এবং চার নম্বর পজিশনের জন্য সূর্যকুমার যাদব ও শ্রেয়াস আইয়ারের মধ্যে একজনকে বেছে নেওয়ার সম্ভাবনা আছে।

ঋষভ পান্ত পাঁচ নম্বরে ব্যাট করতে আসবেন এবং তাঁর হাতেই উইকেটকিপারের গ্লাভস থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টিতে তাঁর প্রতিভার ঝলক দেখানোর পর ভেঙ্কটেশ আইয়ার অলরাউন্ডার হিসাবে ওডিআইতে অভিষেক করবেন এবং ছয় নম্বরে ব্যাট করতে দেখা যেতে পারে।

দুই স্পিনার হিসেবে রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও যুজবেন্দ্র চাহালের থাকার সম্ভাবনা। তিনজন পেসার কে হবেন তা নিয়ে টিম ম্যানেজমেন্টকে ভাবনাচিন্তা করতে হবে বলে মনে হচ্ছে। ভুবনেশ্বর কুমার সাম্প্রতিক সময়ে সেরা ফর্মে নেই।

তিনি নাও খেলতে পারেন। ব্যাটিং দক্ষতার কারণে শার্দূল ঠাকুরকে বেছে নেওয়া হতে পারে। এ ছাড়া জসপ্রীত বুমরাহ তো থাকবেনই পেস বিভাগের নেতা হিসেবে। অবশিষ্ট জায়গাটির জন্য প্রসিধ কৃষ্ণ, দীপক চাহার ও মহম্মদ সিরাজের মধ্যে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা আশা করা যায়।

সিরিজ জেতার পর তেম্বা বাভুমা ও তাঁর সতীর্থদের আত্মবিশ্বাস তুঙ্গে থাকবে। ভারত যখন এর আগের বার দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ওয়ানডে সিরিজে খেলেছিল তখন ৫-১ ব্যবধানে জিতেছিল। অধিনায়ক বাভুমা চায়বেন এইবার যেন সেই পারফর্ম্যান্সের পুনরাবৃত্তি না হয়।

স্বাগতিক দল তাদের সীমিত ওভারের নিয়মিত খেলোয়াড় ডেভিড মিলার, তাব্রেইজ শামসি, ডোয়েন প্রিটোরিয়াস এবং জ্যানেমান মালানদের ফিরিয়ে এনেছে। সদ্য টেস্ট থেকে অবসর নেওয়া কুইন্টন ডি কক দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। কলপ্যাক চুক্তির মেয়াদ শেষ করে ওয়েন পার্নেল জাতীয় দলে ফিরে এসেছেন।

ওপেনিংয়ে মালানের সঙ্গে ডি ককের নামার সম্ভাবনা। টেস্টে ফর্মে না থাকলেও সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ভালো ফর্মে থাকা এইডেন মার্করাম তিন নম্বরে থাকবেন। ওয়ানডে ফর্ম্যাটে ৬৫.৫৬ গড় থাকা র‍্যাসি ফান ডার ডাসেন চারে নামার জন্য প্রস্তুত। অধিনায়ক বাভুমা পাঁচে নামবেন বলে আশা করা যায়।

ডেভিড মিলার পাওার-হিটার হিসেবে ছয়ে নামবেন। সাতে অলরাউন্ডার ডোয়েন প্রিটোরিয়াসকে দেখা যাওয়ার সম্ভাবনা। তিনি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ডেথ বোলিং ভালো করেছিলেন। আট নম্বরে আসতে পারেন আন্দিলে ফেকলুকওয়াও বা মার্কো ইয়্যানসেনের একজন। বোলিংয়ের পাশাপাশি দুজনেই ব্যাট হাতেও অবদান রাখতে পারেন।

দুই স্পিনার খেলানো হলে তাব্রেইজ শামসি ও কেশব মহারাজ দুজনকেই দেখা যেতে পারে। তবে এক স্পিনার খেলানো হোলে শামসিরই সম্ভাবনা বেশী। সেক্ষেত্রে আরও এক পেসার হিসেবে ওয়েইন পার্নেল না লুঙ্গি ঙ্গিডির সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনা। পেস বিভাগকে নেতৃত্ব দিতে দেখা যাবে কাগিসো রাবাডাকে।

সম্ভাব্য একাদশ
ভারত

শিখর ধাওয়ান, কেএল রাহুল (অধিনায়ক), বিরাট কোহলি, সূর্যকুমার যাদব, ঋষভ পান্ত, ভেঙ্কটেশ আইয়ার, শার্দূল ঠাকুর, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, দীপক চাহার, জসপ্রীত বুমরাহ, যুজবেন্দ্র চাহাল।

দক্ষিণ আফ্রিকা

জ্যানেমান মালান, কুইন্টন ডি কক, এইডেন মার্করাম, র‍্যাসি ফান ডার ডাসেন, তেম্বা বাভুমা, ডেভিড মিলার, ডোয়েন প্রিটোরিয়াস, মার্কো ইয়্যানসেন, কেশব মহারাজ, কাগিসো রাবাডা, তাব্রেইজ শামসি।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *