ধোনি, হার্ডিক পান্ডিয়ার থেকেও বিধ্বংসী এই ক্রিকেটাকে খুঁজে পেল টিম ইন্ডিয়া

ধোনী একাধিক সম্মান ও পুরস্কার পেয়েছেন। তিনি ২০০৮ ও ২০০৯ সালে আইসিসি একদিনের ক্রিকেটের বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পান। তিনিই প্রথম ভারতীয়, যিনি এই পুরস্কার পেয়েছেন। এছাড়া তিনি ভারতের সর্বোচ্চ ক্রীড়া সম্মান রাজীব গান্ধী খেলরত্ন ও দেশের চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান পদ্মশ্রী পেয়েছেন।

একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট রেটিংয়ে জানুয়ারী ২০১০ সালে ধোনী সর্বোচ্চ র‌্যাঙ্কিংধারী খেলোয়াড়ের অধিকারী ছিলেন। ২০০৯ সালে ক্রিকেটের বাইবেল নামে পরিচিত উইজডেনের

স্বপ্নের টেস্ট একাদশ দলের অধিনায়ক হিসেবে ঘোষিত হন এবং ফোর্বস ম্যাগাজিন কর্তৃক বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ধনী ১০ ক্রিকেটারের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় হিসেবে মনোনীত হন মহেন্দ্র সিং ধোনি।

২০০৯ সালে ধোনি আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট এবং আইসিসি ওডিআই দলের অধিনায়ক হিসেবে তার নাম ঘোষিত হয়। ২০১১ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেটের চূড়ান্ত খেলায় তিনি মাত্র ৭৯ বলে ৯১ রান করে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অসাধারণ ব্যাট করেন এবং

ভারতীয় দল চ্যাম্পিয়ন হয়। ঐ খেলায় ধোনি ম্যান অব দ্য ম্যাচের সম্মানজনক পুরস্কার লাভ করেন। বিশ্বের ইতিহাসে অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ জয় করেন ।

২০১৫-১৬ মৌসুমে সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তার টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে।[৯] ২৬ জুলাই, ২০১৬ তারিখে অনুষ্ঠিত ঐ খেলায় তিনি ২ উইকেট তুলে নেন। ক্রিস লিন তার প্রথম শিকারে পরিণত হয়েছিলেন।

২০১৬ সালের আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতা উপলক্ষে বিসিসিআই কর্তৃপক্ষ ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ তারিখে ভারত দলের খেলোয়াড়দের তালিকা প্রকাশ করে।[১০] এতে তিনিও অন্যতম সদস্য মনোনীত হন।

২০১১ সালে ধোনিকে ভারতের সামরিক বাহিনী লেফটেন্যান্ট কর্নেলের পদমর্যাদা প্রদান করে।[২] মহেন্দ্র সিং ধোনী ১৫ই অগাস্ট, ২০২০ তারিখে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর গ্রহণ ঘোষণা

আইসিসি অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ ২০২২-এর ১৫তম ম্যাচ বুধবার ভারত এবং আয়ারল্যান্ডের মধ্যে খেলা হয়েছিল। এই ম্যাচে, ভারতীয় দল, দুর্দান্ত পারফর্ম করে, প্রতিপক্ষ দলকে ১৭৪ রানে পরাজিত করে।

ম্যাচের নায়ক ওপেনার হারনুর সিং । ইনিংস ওপেন করতে গিয়ে ৮৮ রানের সেরা হাফ সেঞ্চুরি ইনিংস খেলেন তিনি। এই সময়ে তিনি ১০১ বল খেলার সময় ১২টি চার মারেন।

এই ম্যাচে টিম ইন্ডিয়াকে একবার আয়ারল্যান্ডকে ২৭০ থেকে ২৮০ রানের টার্গেট দিতে দেখা গিয়েছিল, কিন্তু পাঁচ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ১৯ বছর বয়সী তরুণ ব্যাটসম্যান রাজবর্ধন হাঙ্গারগেকার

মাত্র ১৭ বলে অপরাজিত ৩৯ রান করেন। ইনিংসের লক্ষ্য পেরিয়ে যায় ৩০০ রান। এই সময়ে তিনি একটি বা দুটি নয়, পাঁচটি দুর্দান্ত ছক্কা এবং একটি চার মারেন। হাঙ্গারগেকার প্রথমে বাঁহাতি স্পিনার নাথান ম্যাকগুইয়ারকে লক্ষ্য করেন, যিনি আয়ারল্যান্ডের জন্য ৪৯তম ওভার এনেছিলেন। ম্যাকগুয়ারের এই ওভারে দুর্দান্ত দুটি ছক্কা হাঁকান তিনি।

এরপর তিনি আইরিশ দলের মিডিয়াম পেসার ফাস্ট বোলার মুজামিল শেরজাদকে তার দুর্দান্ত লক্ষ্যে পরিণত করেন। শেরজাদের এই ওভারে ছক্কা হাঁকিয়ে হ্যাটট্রিক করেন ভারতীয় ব্যাটসম্যান।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *