পুজারাকে নিয়ে কঠিন সমালোচনায় উত্তাল ভারত, অবশেষে স্তুতির আভাস দিলেন গাভাস্কার

দু থেকে তিন আগেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে যখন প্রথম ইনিংসে ৩ রান করে সাজঘরে ফিরেছিলেন চেতেশ্বর পুজারা, ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন সুনীল গাভাস্কার। ওয়ান্ডারার্স টেস্ট শেষ হওয়ার পর সেই প্রাক্তন ভারতীয় তারকার মুখেই চেতেশ্বর পুজারাকে নিয়ে অন্য কথা।

পুজারার কামব্যাকের পরই, তাঁকে এবার হাসিম আমলার সঙ্গে তুলনা করলেন সুনীল গাভাস্কার। ভারতীয় এই ব্যাটসম্যানকে দেখে নাকি প্রোটিয়া ওপেনার আমলার কথাই মনে পড়ে গাভাস্কারের।

প্রায় ১ বছর বড় রান পেতে ব্যর্থ হয়েচিলেন চেতেশ্বর পুজারা। আর সেইসঙ্গেই বাড়তে শুরু করেছিল সমালোচনাও। তাঁর সমালোচকদের তালিকায় প্রতিদিনই যুক্ত হচ্ছিলেন কেউ না কেউই। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে পুজারার ভারতীয় দলে জায়গা পাওয়া নিয়েও প্রশ্ন তুলতে ছাড়েননি কেউই। সেখানে সেঞ্চুরিয়নে ব্যর্থ। ওয়ান্ডারার্সেও প্রথম ইনিংসে মাত্র ৩ রানে ফিরে গিয়েছিলেন পুজারা।

এরপরই কমেন্ট্রি বক্স থেকে সুনাল গাভাস্কারের সেই মন্তব্য ভেসে আসে। টেস্ট কেরিয়ার বাঁচাতে চাইলে রাহানে এবং পুজারার কাছে জোহানেসবার্গের দ্বিতীয় ইনিংসই সময়। নয়ত আর সময় পাবে না তারা। যদিও সমালোচকদের জবাবটা দ্বিতীয় ইনিংসে দিতে পেরেছিলেন চেতেশ্বর পুজারা। সঙ্গে অবশ্যই অজিঙ্ক রাহানেও। দীর্ঘদিন পর ব্যাটে অর্ধশতরান পেয়েছিলেন ভারতীয় টেস্ট দলের তারকা ব্যাটসম্যান।

আর সেই ঘটনার দুদিন পরই গাভাস্কারের মুখে পুজারা স্তুতি। এক আলোচনায় গাভাস্কার জানান, ‘পুজারাকে দেখলেই আমার হাসিম আমলার কথা মনে পড়ে। আমলা যখনই ব্যাট করুকনা কেন সবসময়ই ঠান্ডা মেজাজে থাকে। চেতেশ্বর পুজারার মধ্যেও সেই একই জিনিস দেখতে পাই’।

শুধু এটুকুই নয় গাভাস্কার আরও জানান, ‘ভারতীয় পিচে ব্যাট করার সময় হাসমিকে ভালভাবে লক্ষ্য করেছি। পিচের প্রকৃতিতে বারবার বোলাররা চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছে প্রোটিয়াদের। কিন্তু হাসিমের ব্যাটিং দেখে অবাকই হয়েছি। চাপের কোনও চিহ্নমাত্র নেই। যেন মনে হচ্ছিল কিছুই হয়নি। সেই একই জিনিস দেখতে পাই পুজারার মধ্যেও। ড্রেসিংরুমে এমন টেম্পারামেন্টের ক্রিকেটার ড্রেসিংরুমে থাকাটা সত্যিই খুব বড় পাওয়া’।

কঠিন সময়ে চাপ নিয়েও মাথা ঠান্ডা রেখে কেমনভাবে খেলা যায় তা আমলার পর পুজারার মধ্যেই দেখতে পেয়েছেন সুনীল গাভাস্কার। আর তা দেখেই এখন পুজারার পারফরম্যান্সে মুগ্ধ এই প্রাক্তন ভারতীয় তারকা।

জোহানেসবার্তীগে দ্বিতীয় ইনিংসে ৮৬ বলে ৫৩ রানের ইনিংস খেলেছিলেন চেতেশ্বর পুজারা। অজিঙ্ক রাহানের সঙ্গে কঠিন পরিস্থিতিতে গড়ে তুলেছিলেন ১১১ রানের পার্টনারশিপও। যদিও ম্যাচটা শেষপর্যন্ত জিততে পারেনি ভারত। কিন্তু পুজারাদের এই ইনিংস কিন্তু অনেককিছুরই জবাব। এখনও হয়ত অনেক জবাব দেওয়া বাকি রয়েছে তাদের। ওয়ান্ডারার্স থেকেই বোধহয় তা দেওয়া শুরু করেছেন চেতেশ্বর পুজারা।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *