ফের আইপিএল নিয়ে নতুন সিদ্ধান্তের পথে বিসিসিআই

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ, যা স্পন্সরজনিত কারণে আনুষ্ঠানিকভাবে ভিভো ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ নামে পরিচিত, হচ্ছে ভারতের একটি প্রতিযোগিতামূলক টুয়েন্টি২০ ক্রিকেট লিগ।

এটি প্রতি বছর সাধারণত এপ্রিল ও মে মাসে ভারতের কয়েকটি নির্দিষ্ট শহর এবং রাজ্যের প্রতিনিধিত্বকারী দলের মধ্যে আয়োজিত হয়।

বিগত দুই মরশুম আমিরশাহীতে আয়োজনের (গত মরশুমের দ্বিতীয়ভাগ) পর কিছুদিন আগেই বিসিসিআইয়ের তরফ স্পষ্ট করে দেওয়া হয়, যে আসন্ন মরশুমে ফের একবার দেশের মাটিতেই আইপিএলের আসর বসবে। তবে হু হু করে করোনা সংক্রমণ বাড়ায় ফের একবার মেগা টুর্নামেন্ট আয়োজন ঘিরে চিন্তার ভাঁজ বিসিসিআই আধিকারিকদের কপালে।

প্রাথমিকভাবে স্বাভাবিক নিয়মেই হোম ও অ্যাওয়ে ফর্ম্যাটে আইপিএল ২০২২ আয়োজনের কথা থাকলেও Times of India-র রিপোর্ট অনুযায়ী প্ল্যান ‘বি’ হিসেবে গোটা টুর্নামেন্ট মুম্বইয়ে আয়োজন করার কথা ভাবছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই। মূলত ওয়াংখেড়ে, ব্রেবোর্নের পাশপাশি নভি মুম্বাইয়ের ডি ওয়াই পাতিল এবং পুণেতে মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন গ্রাউন্ড, এই চারটি স্টেডিয়ামে আইপিএলের গোটা মরশুম আয়োজনের কথা ভাবছে বিসিসিআই

মহারাষ্ট্র ক্রিকেট বোর্ডের অ্যাপেক্স কমিটির আলোচনাসভায়, বিসিসিআইয়ের অন্তর্বর্তীকালীন সিইও এবং আইপিএলের চিফ অপারেটিং অফিসার হেমাং আমিন এই বিষয়ে মুম্বই ক্রিকেটের প্রধান বিজয় পাতিলের সঙ্গে কথাবার্তাও বলেছেন বলে একই রিপোর্টে দাবি করা হয়।

এক সূত্র Times of India-কে জানায় যে মহারাষ্ট্রে আইপিএল আয়োজনের বিষয়ে কথা বলতে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এবং মুম্বই ক্রিকেট বোর্ডের আধিকারিকরা শীঘ্রই মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চলেছেন। বিগত দুইবারের মতো, এবারের আইপিএলও দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে এবং কড়া জৈব বলয়ের মধ্যেই আয়োজিত করার পরিকল্পনায় বিসিসিআই।

সুতরাং, মুখ্যমন্ত্রীর অনুমতি পেতে খুব অসুবিধা হওয়ার কথা নয়, বলে দাবি উক্ত সূত্রের। তবে যদি কোনো কারণে মহারাষ্ট্র সরকার থেকে অনুমতি না মেলে, তবে পুনরায় মরু শহরেই আইপিএল অনুষ্ঠিত হতে পারে বলেও জানাচ্ছেন তিনি।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *