ফের সৌরভ-কোহলি দ্বন্দ্ব নিয়ে বোমা ফাটালেন ভারতের প্রাক্তন কোচ

গত বছরের ডিসেম্বরে বিসিসিআই বিরাট কোহলির কাছ থেকে ওয়ান ডে অধিনায়কত্ব ছিনিয়ে নেয়। বিরাটের মতো একজন তারকা ওয়ান ডে অধিনায়কত্ব থেকে সরে যাওয়ার পর

ভারতীয় ক্রিকেটের অন্দরমহল নিয়ে হাজারটা জল্পনা গজিয়ে ওঠাটাই স্বাভাবিক। সংবাদ সম্মেলনে বিরাট কোহলির কিছু বক্তব্যের পর এই পরিস্থিতি আরও জটিল হয়।

কোহলি বিসিসিআই সভাপতির বক্তব্যকে সরাসরি না হলেও, অস্বীকার করেছিলেন। সৌরভ গাঙ্গুলি বলেছিলেন যে তিনি কোহলিকে টি টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব থেকে সরে না যাওয়ার জন্য ভেবে দেখতে বলেছিলেন।

প্রধান নির্বাচক চেতন শর্মাও ওয়ান ডে দল নির্বাচনের সময় সংবাদ সম্মেলনে সৌরভের কথার পুনরাবৃত্তি করেছিলেন। চেতন বলেছিলেন যে টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য দল বাছাই সভায় উপস্থিত সবাই কোহলিকে

টি টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেওয়ার বিষয়ে পুনর্বিবেচনার অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু বিরাট জানিয়েছেন যে তাকে অধিনায়কত্ব না ছাড়ার জন্য কোনও অনুরোধ করা হয়নি।

এবার এই গোটা বিতর্কে ঢুকে পড়েছেন ভারতীয় দলের প্রাক্তন প্রধান কোচ রবি শাস্ত্রীও। শাস্ত্রী বিশ্বাস করেন যে বিরাট কোহলি তার পক্ষে রেখেছেন।

এমন পরিস্থিতিতে এখন সৌরভ গাঙ্গুলীরও মতামত দেওয়া উচিত। সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে শাস্ত্রী বলেছেন, ‘এই বিষয়টি আরও ভালভাবে সামলানো যেত। বিষয়টি পাবলিক ডোমেইনে না এসে ব্যক্তিগত সংলাপ হিসাবে সীমাবদ্ধ থাকলেই ভালো হতো।

বিরাট কোহলি জানিয়েছেন নিজের পক্ষের গল্প। এখন বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলীর উচিত এই বিষয়ে স্পষ্ট করে নিজের পক্ষ জানানো।

কে মিথ্যা বলছে সেটা প্রশ্ন নয়, প্রশ্ন হল সত্যটা কি। আমরা সত্য জানতে চাই এবং আমি মনে করি এটি কেবল সংলাপের মাধ্যমেই বেরিয়ে আসতে পারে।

তার কোচিংয়ের সময় রবি শাস্ত্রীর বিরুদ্ধে বরাবরই কোহলিকে বড্ড বেশি প্রশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। এ প্রসঙ্গে শাস্ত্রী বলেন, ‘আমি এ ধরনের বিষয়কে গুরুত্ব দেই না।

মানুষের কথা বলার, লেখার এবং অনুমান করার অধিকার আছে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে আমিও এতে অংশ নেব। বিরাট আর আমার একটা দারুণ সম্পর্ক ছিল।

দুই সমমনা ব্যক্তি পেশাদার পদ্ধতিতে তাদের কাজ করছিল। কোচ হিসাবে সবচেয়ে কঠিন কাজগুলির মধ্যে একটি হল দল নির্বাচন, কিন্তু আমি যে সাত বছরে এই জিনিসটির সাথে জড়িত ছিলাম,

দলে কোনও একজন নির্দিষ্ট ক্রিকেটারকে জায়গা দেওয়ার কোনও এজেন্ডা আমার ছিল না। একেবারেই ছিল না। আমি যদি মনে করি কোনো খেলোয়াড় ফর্মে আছে, সে দলের জন্য ভালো, তাহলে অতীত ও অভিজ্ঞতার দিকে তাকালে আমি অধিনায়ক বা ম্যানেজমেন্টকে বলতাম।’

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *