বিশ্বকাপে ভারতকে হারানোর সেই ঘটনাকে এবার পুনরাবৃত্তি করে যে মন্তব্য করলেন বাবর আজম

বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তানের জয় ছিল যেন সোনার হরিণ। ১২টি ম্যাচ খেলা হলেও কোনো ফরম্যাটেই ভারতকে হারাতে পারেনি পাকিস্তান। সেই সোনার হরিণটা অবশেষে ধরা দিয়েছে বাবর আজমদের হাতে।

ওমান এবং আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতকে প্রথমবারের মত হারানোর স্বাদ নিয়েছে পাকিস্তান। তাও ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে।

ওয়ানডে হোক কিংবা টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট, যে কোনো ফরম্যাট মিলিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপে তাদের এটাই প্রথম জয়। ২৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিত ম্যাচে বাবর আজমের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তাব শুধু ম্যাচই জেতেনি, বিরাট কোহলির দলকে ১০ উইকেটের ব্যবধানে বিধ্বস্ত করে ছেড়েছে।

১৫১ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে সেদিন প্রথম উইকেটে বাবর-রিজওয়ান জুটি পাকিস্তানকে এক অবিস্মরণীয় জয় উপহার দিয়েছিল। সেই জয় নিয়ে এতদিন পর প্রতিক্রিয়া জানালেন পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম। সে মূহুর্তকে তিনি ভাষায় প্রকাশ করতে কার্যত অপারগ বলে জানালেন।

আরব আমিরাতে ২২ গজে সেদিন ভারতীয় ব্যাটিংয়ের মেরুদন্ড কার্যত ভেঙে দিয়েছিলেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। নিজের ৪ ওভারে ৩১ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়েছিলেন এই পেসার।

রোহিত শর্মা এবং লোকেশ রাহুলকে প্যাভিলিয়নে ফিরিয়েছিলেন দু’টি বিশ্বমানের ডেলিভারিতে। এরপরই বাবরের অপরাজিত ৬৮ এবং রিজওয়ানের অপরাজিত ৭৯ রানে ভর করে এক ঐতিহাসিক জয় নিশ্চিত করে পাকিস্তান।

২০২১ সালের বিদায়ের দিনেই সেই জয় সম্পর্কে মুখ খোলেন পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম। তিনি বলেন, ‘২০২১ সালে আমাদের জন্য সবচেয়ে সেরা মুহূর্ত হলো বিশ্বকাপে ভারতকে হারানো।’

সেই সময়ের অনুভূতির কথা জানাতে গিয়ে বাবর বলেন, ‘আমি সে মূহূর্তটা ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। আমরা অতীত রেকর্ড নিয়ে ভাবছি না। বর্তমান পারফরম্যান্স নিয়ে বেশি চিন্তিত। যেভাবে আমরা শুরু এবং শেষ করেছিলাম। যে পরিবেশ, উন্মাদনা তৈরি হয়েছিল তা এক কথায় অসাধারণ। সমর্থকদের প্রতিক্রিয়াও ছিল অনবদ্য।’

‘ভারতের বিরুদ্ধে ওই ম্যাচের আগে বিশ্বকাপে আমাদের দেশ কোনও জয় নেই। সৃষ্টিকর্তা আমাদের সহায়তা করেছেন, সে পরিসংখ্যান বদলাতে। এটা দলগত ব্যাপার ছিল। আমাদের নিজেদের প্রতি আস্থা ছিল। শুরু নয় বরং আপনি কিভাবে শেষ করছেন, সেটা গুরুত্বপূর্ণ।

আমরা যেভাবে বছরটা শেষ করেছি তা খুব উল্লেখযোগ্য। প্রতি ম্যাচেই আমাদের আলাদা আলাদা ম্যাচের সেরা হওয়ার যোগ্য ক্রিকেটার ছিল। হার থেকে আমরা শিক্ষা নিয়ে প্রতিদিন উন্নতি করার চেষ্টা করছি।’

ভারতকে হারিয়ে বিশ্বকাপ শুরুর করার পর সবাই ধরে নিয়েছিল, এবার চ্যাম্পিয়ন হবে পাকিস্তানই। কিন্তু সেমিফাইনালে গিয়ে পাকিস্তান হেরে যায় অস্ট্রেলিয়ার কাছে।

ওই ম্যাচ নিয়ে বাবর আজম বলেন, ‘বছরের সবচেয়ে দুঃখজন অধ্যায় ছিল সেটি। কারণ, আমরা খুব ভালো খেলেছিলাম এবং একটি দল হিসেবে বেশ ভালোই ছিলাম। কিন্তু শেষ পর্যন্ত হেরে যেতে হলো।’

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *