ব্যর্থ মিডল অর্ডার, দ্বিতীয় ওয়ানডেতে এই বিধ্বংসী ক্রিকেটারকে নেয়ার জোর দাবী সাবেক ক্রিকেটারদের

জার্সি ও বলের রং এবং ফর্ম্যাট বদলালেও, বদলায়নি ভারতীয় দলের ব্যাটিং ব্যর্থতা। টেস্ট সিরিজের পর প্রথম ওয়ান ডেতে ফের একবার মিডল অর্ডারের চূড়ান্ত ব্যর্থতায়, দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ৩১ রানে পরাস্ত হয়েছে ভারতীয় দল।

প্রোটিয়াদের ২৯৬ রানের জবাবে ২৬৫ রানেই থেমে যায় ভারতীয় ইনিংস। এই ব্যর্থতার দিকে তাকিয়েই দ্বিতীয় ওয়ান ডের আগে ভারতীয় দলে পরিবর্তনের ডাক দিলেন সঞ্জয় মঞ্জরেকর।

এক সময় বিরাট কোহলি এবং শিখর ধাওয়ানের সুবাদে ভারতীয় দল রান তাড়া করার দিকে সঠিক বেগেই এগোচ্ছিল। তবে প্রথমে শিখর এবং পরে বিরাটের উইকেট পড়ার পরই সাম্প্রতিক সময়ে ভারতীয় মিডল অর্ডারের দুর্দাশা ফের একবার স্পষ্টভাবে সামনে উঠে আসে।

২৮ ওভারে ১৫২ রানে দুই উইকেট থেকে ৪২.২ ওভারে ২১৪ রানে আট উইকেট হারিয়ে ফেলে ভারতীয় দল। এই ব্যাটিং ব্যর্থতার দিকে ইঙ্গিত করে দলে সূর্যকুমার যাদবের অন্তর্ভুক্তির দাবি জানান মঞ্জরেকর।

ম্যাচ শেষে পর্যালোচনা সভায় প্রাক্তন ভারতীয় ব্যাটার জানান, ‘আমি বারবার বলে এসেছি, পাঁচে ঋষভ পন্ত এবং তারপর বেঙ্কটেশ আইয়ারকে ব্যাটে নামানো হলে, ভারতীয় দলের মিডল অর্ডার বরাবরই কমজোর মনে হয়।

এমন এক পিচ যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আরও শুকনো এবং মন্থর হয়ে যায়, সেখানে একজন নতুন ক্রিকেটারকে ছয় ব্যাট করানো হলে, তার পক্ষে খেলাটা খুবই কঠিন। (ভারতীয়) দলের ব্যাটিংয়ে অর্ডারের নীচের দিকে (প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলার মতো) তেমন কেউ ছিলই না।

সেই কারণেই আমার মনে হয় এই দলে সূর্যকুমার যাদবকে সুযোগ দেওয়া উচিত। মিডল অর্ডারকে মজবুত করার জন্য অল্পস্বল্প পরিবর্তন করার দরকার।’

সূর্যকুমার শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে নিজের ওয়ান ডে অভিষেক ঘটিয়ে তিন ম্য়াচের সিরিজে ৬৪-র গড়ে মোট ১২৪ রান করেছিলেন। তবে পার্লে প্রথম ওয়ান ডের জন্য ৩১ বছর বয়সী সূর্যর বদলে মুম্বইয়েরই আরেক ব্যাটার শ্রেয়স আইয়ারকে দলে সুযোগ দেওয়া হয়।

তবে শ্রেয়স শুরুটা ভাল করেও ১৭ বলে ১৭ রান করে সাজঘরে ফেরেন। ভারতীয় মিডল অর্ডারের কেউই বড় রান করতে পারেননি। এই ব্যর্থতার পর ২১ জানুয়ারি দ্বিতীয় ওয়ান ডেতে সূর্য দলে সুযোগ পান কি না, এখন সেটাই দেখার।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *