তেজপাতার পুষ্টিগুণ শা’রীরিক নানা স’মস্যা থেকে মু’ক্ত রাখে৷ শুধু তাই নয়, তেজপাতার রয়েছে আরও বেশ কিছু অসাধারণ ব্যবহার। আর তা হচ্ছে রূপচর্চায়। অ’বাক হওয়ারই কথা৷ জে’নে নিন রূপচর্চায় তেজপাতার অসাধারণ তেজে’র কথা৷

১. একটি প্যানে ২ কাপ জলে ৫ টি শুকনো তেজপাতা নিয়ে ঢেকে জ্বাল দিন। এরপর ঢাকনা খু’লে ২ মিনিট জ্বাল দিয়ে একটি সসপ্যানে নামিয়ে নিন। এরপর একটি তোয়ালে দিয়ে মাথাসহ সসপ্যানটি ঢেকে ভাপ আপনার ত্বকে নিন। এভাবে মিনিট দশেক ভাপ নিলেই যথেষ্ট। সপ্তাহে দু’বার এভাবে করুন, ব্রণ ও রিংকেল স’মস্যার সমাধান থাকবে না।

২. তেজপাতার অ্যান্টিফাঙ্গাল, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান ত্বকের যে কোনও ইনফেকশন দূ’র ক’রতে বিশেষভাবে কা’র্যকরী। ছোটখাটো কাটা ছেঁড়া, জ’খমের দাগ এবং পোকামাকড়ের কা’মড়ের স’মস্যা সহজেই দূ’র ক’রতে পারেন কাঁচা তেজপাতার রসের মাধ্যমে।

৩. জলে তেজপাতা ভালো করে ফুটিয়ে তা ছেঁকে নিয়ে চুল ধোয়ার কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে৷ এতে চুল পড়ার স’মস্যা একেবারেই দূ’র হয়ে যাবে। এছাড়াও তেজপাতার তেল মাথার ত্বকে লা’গালে চুলের খুশকি স’মস্যা থেকেও দ্রুত রেহাই পাবেন।

৪. ৫০ গ্রাম তেজপাতা গুঁড়ো করে নিয়ে ৪০০ মিলি জলে জ্বাল দিতে থাকুন, যতক্ষণ না ১০০ মিলিতে পৌঁছায়। শুকিয়ে এলে ছেঁকে জল আ’লাদা করে নিন। সেই জল চুলের গোঁড়ায়, মাথার ত্বকে ভালো করে ম্যাসেজ করে নিন। ৩-৪ঘণ্টা রেখে চুল ধুয়ে ফেলুন। ব্যস, উকুন স’মস্যা দূ’র হয়ে যাবে।

৫. তেজপাতা গুঁড়ো করে টুথপেস্টের স’ঙ্গে মিশিয়ে তা দিয়ে দাঁত ব্রাশ করে নিন। দেখবেন খুব দ্রুত দাঁতের হলদেটে দাগ একেবারেই দূ’র হয়ে গিয়েছে। তবে ঘন ঘন এই পদ্ধতি অবলম্বন করবেন না।

৬. কাঁচা তেজপাতা অলিভ অয়েলে ফুটিয়ে তেজপাতার তেল তৈরি করে নিতে পারে। এই তেল দে’হে ব্যবহার করলে মশা থাকবে দূ’রে এবং মশার কা’মড়ের জ্বা’লাপোড়া থেকে র’ক্ষা পাওয়া যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.