মোহাম্মদ শামিকে নিয়ে আকাশ ছোঁয়া মন্তব্য আকাশ চোপড়ার, মুহূর্তেই ভাইরাল ক্রিকেটবিশ্বে

মোহাম্মদ শামি আহমেদ উত্তরপ্রদেশের আমরোহা এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ভারতীয় ক্রিকেটার। তিনি ভারত ক্রিকেট দলের টেস্ট ও একদিনের আন্তর্জাতিকে ক্রিকেট খেলছেন।

এছাড়াও, ঘরোয়া ক্রিকেটে বাংলার হয়ে খেলছেন। মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবেই তার দলে অংশগ্রহণ। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে কলকাতা নাইট রাইডার্স দলের হয়ে খেলছেন তিনি

সেঞ্চুরিয়ানে প্রথম টেস্টে মোহাম্মদ সামির পারফরম্যান্স দেখে মোহিত হয়েছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি। তাই ম্যাচ শেষে মোহাম্মদ সামির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হতে দেখা গিয়েছিল তাকে।

বলতে গেলে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক জয় অর্জনে মোহাম্মদ সামির গুরুত্ব অপরিমেয় ছিল। বিরোধীদলকে বলতে গেলে প্রায় একাই প্যাভিলিয়নে পাঠিয়েছেন মোহাম্মদ সামি।

ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেট দখল করেন সামি। দ্বিতীয় ইনিংসে নেন আরো ৩ উইকেট। অর্থাৎ ২০ উইকেটের মধ্যে মোহাম্মদ সামির নামে ৮ উইকেট। তাই বিরাট কোহলির মন্তব্য যুক্তিসম্মত বলে মনে করছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা।

এবার সেই স্রোতে গা ভাসালেন ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটার আকাশ চোপড়া। তিনি এদিন তার ইউটিউব চ্যানেলে মোহাম্মদ সামির পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ করেন। সেখানে তিনি বলেন, বিশ্বমানের পারফরম্যান্স দিয়েছেন মোহাম্মদ সামি।

আমার কাছে ও বর্তমান সময়ের ভারতের শ্রেষ্ঠ সিমারদের মধ্যে একজন। যে পিচ থেকে বাকি বোলররা সেভাবে সুবিধা করতে পারে না, সেখানেই সামি সাফল্য লাভ করে।

এটা হয় শুধুমাত্র ওর সিম পজিশন লেন্থের জন্য। আর বোলিং বৈচিত্রতার জন্য আমি ওকে জসপ্রীত বুমরাহ থেকে এগিয়ে রাখবো। নিঃসন্দেহে জসপ্রীত বুমরাহ বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা পেস বোলার। তার পরেও আমি এক্ষেত্রে মোহাম্মদ সামিকে এগিয়ে রাখবো।

উল্লেখ্য, চলতি সিরিজে মোহাম্মদ সামি ভারতীয় পঞ্চম পেস বোলার হিসেবে ২০০ উইকেট দখল করে এলিট ক্লাবে প্রবেশ করেছেন। সেই প্রসঙ্গ টেনে এনে ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটার আকাশ চোপড়া বলেন, ওর ২০০ উইকেটের জন্য আমি খুশি।

আরও একটা পারফরম্যান্সে প্রভাব ফেলেছে ম্যাচে। উল্লেখ্য, দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামে। প্রথম ইনিংসে কে এল রাহুল এবং মায়ানক আগারওয়ালের দুর্দান্ত জুটিতে ৩২৭ রান করে ভারত। জবাবে মাত্র ১৯৭ রানে সবকটি উইকেট হারিয়ে ফেলে দক্ষিণ আফ্রিকা।

দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের ব্যাটসম্যানরা চরমভাবে ব্যর্থ হন। কিন্তু প্রথম ইনিংসে ১৩০ রানের লিড থাকায় দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৭৪ রান সংগৃহীত হলেও দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে ৩০৪ রানের বিশাল লক্ষ্যমাত্রা স্থির হয়।

জবাবে পঞ্চম দিনের সবকটি উইকেট হারিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা ১৯১ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয়। সিরিজের প্রথম টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১১৩ রানে পরাজিত করে বর্তমানে ভারত ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *