শচিনের চেয়েও এই ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে জমের মত ভয় পেতেন শোয়েব

পাকিস্তানের প্রাক্তন ফাস্ট বোলার শোয়েব আখতার, যিনি তার আগ্রাসী ফাস্ট বোলিংয়ের মাধ্যমে বিশ্বজুড়ে ব্যাটসম্যানদের ঘুম ছুটিয়ে দিয়েছিলেন। সেই বিখ্যাত পেসার এবার জানালেন যে কোন ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের আউট করতে তার ঘাম ছুটে যেত?

শোয়েব আখতার প্রকাশ করেছেন যে সচীন টেন্ডুলকারের মতো দুর্দান্ত ব্যাটসম্যানকে আউট করা তুলনামূলকভাবে কিছুটা সহজ হলেও ভারতীয় ক্রিকেটের ‘দ্য ওয়াল’-এর উইকেট পাওয়া সবসময়ই খুব কঠিন ছিল।

সচীন টেন্ডুলকারের থেকেও খুব বেশি বিপজ্জনক ব্যাটসম্যান রাহুল দ্রাবিড়কে বলেছেন শোয়েব আখতার। শোয়েব মনে করেন যে রাহুল দ্রাবিড়কে আউট করা সচীন টেন্ডুলকারের চেয়েও বেশি কঠিন ছিল।

রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেসের মতে ভারতের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান রাহুল দ্রাবিড়কে বল করা তার পক্ষে খুব কঠিন ছিল। আখতার বলেছিলেন যে দ্রাবিড়ের ধৈর্য এবং দক্ষতার কারণে তিনি তাদের খুব সহজেই খেলতে পারতেন।

আখতার বলেন, ‘যদি কোনো ব্যাটসম্যান দ্রাবিড়ের মতো বল একদম দেরিতে খেলতেন, আমরা তাকে উইকেটের লাইনের কাছাকাছি থেকে একটি লেংথে বল করার চেষ্টা করতাম এবং ব্যাট ও প্যাডের মাঝে ফাঁক খুঁজে নিতাম।

আমরা প্যাডে বল মারার চেষ্টা করতাম। আখতার বলেছিলেন যে তিনি একবার বেঙ্গালুরুতে দ্রাবিড়কে এলবিডব্লিউ আউট করতে সফল হয়েছিলেন, কিন্তু আম্পায়ার তাকে আউট দেননি।

সেই ম্যাচের কথা স্মরণ করে আখতার বলেন, ‘ফাইনাল ম্যাচটা বেঙ্গালুরুতে, আমি সদগোপল রমেশকে তাড়াতাড়ি আউট করে দিয়েছিলাম। আমরা তাড়াতাড়ি তিন-চার উইকেট পেয়ে গিয়েছিলাম। সেই ম্যাচে খেলছিলেন না সচীন।

শহীদ আফ্রিদি আমাকে বলছিলেন যে যাই বলুক , দ্রাবিড়কে আউট করট হবে, না হলে তিনি দীর্ঘক্ষণ ধরে খেলবেন। আখতার বলেন, ‘আমি তাকে সোজা প্যাডে আঘাত করি এবং আম্পায়ারের কাছে আবেদন করি।

আমার বিশ্বাস তা আউট ছিল কিন্তু আম্পায়ার তা মনে করেননি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আমরাই ম্যাচ জিতেছিলাম। শোয়েব আখতার ভারতের বিরুদ্ধে ১০ টি টেস্ট খেলেছেন যাতে তিনি ২৮ উইকেট নেন এবং ৪/৪৭ ছিল তার সেরা পারফরম্যান্স।

এছাড়াও আখতার ভারতের বিপক্ষে ২৮ টি ওডিআইতে ৪১ টি উইকেট নিয়েছিলেন। কলকাতায় অনুষ্ঠিত টেস্টে পরপর দুই বলে রাহুল দ্রাবিড় ও শচীন টেন্ডুলকারকে আউট করে ভারতীয় ভক্তদের একবার হতাশও করেছিলেন শোয়েব আখতার।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *