৪৮ ঘন্টা সময় দেওয়ার পরও কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেলো না কোহলির

তিনি এদিন বলেন, বিরাটকে বারবার অনুরোধ করা হয়েছিল টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ভারতীয় দলের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য। কারণ ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড কখনোই চায় না সাদা বলে দুই জন নেতা হোক।

টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর পর একরকম নিশ্চিত ছিল যে ওডিআই ক্রিকেটেও অধিনায়কত্ব হারাতে চলেছেন বিরাট কোহলি। অবশেষে সেই জল্পনা সত্যি হলো।

যদিও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অধিনায়কত্ব ছড়াটি সম্মানের হলেও ওডিআই ক্রিকেটের ক্ষেত্রে ঠিক তার বিপরীত হলো বিরাট কোহলির জন্য। যেন এক রকম জোর পূর্বক তার নিকট থেকে অধিনায়কত্ব ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে।

যদিও একদিনের ক্রিকেটে অধিনায়কত্ব ছাড়ার জন্য ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের তরফ থেকে ৪৮ ঘন্টা সময় দেওয়া হয়েছিল। তার মধ্যে বিরাট কোহলি কোন রকম প্রতিক্রিয়া না দেখানোয় বাধ্য হয়ে রোহিত শর্মাকে অধিনায়ক করতে হয়েছে বিসিসিআইকে।

এদিকে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলী আরো একবার মুখ খুললেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। তিনি এদিন বলেন, বিরাটকে বারবার অনুরোধ করা হয়েছিল টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ভারতীয় দলের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য।

কারণ ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড কখনোই চায় না সাদা বলে দুই জন নেতা হোক। যেহেতু বিরাট কোহলি নিজের সিদ্ধান্তে অনড় ছিলেন তাই বাধ্য হয়ে একদিনের ক্রিকেটেও রোহিত শর্মাকে নেতা করা হয়েছে।

এটা শুধুমাত্র আমার একার সিদ্ধান্ত নয়। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের স্বনামধন্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে এমন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।

তিনি সংবাদ মাধ্যমে আরও জানান, আমি মনে করি বিষয়টি সময় উপযোগী। সঠিক সময়ে আমাদের সঠিক নির্ণয় নেওয়া হয়েছে। টেস্ট ক্রিকেটে দল নির্বাচন নিয়ে বিরাট কোহলির সাথে আমার কথা হয়েছে।

সেই সময় এই বিষয়টি নিয়েও কথা হয়েছে ওর সাথে। ওর কাছ থেকে কোনরকম প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করিনি। এবার আমাদের লক্ষ্য দিতে হবে ন্যাশনাল ক্রিকেট একাডেমির উপরে।

কারণ ওখানেই তো ভারতীয় ক্রিকেটের জীবন দাঁড়িয়ে রয়েছে। উল্লেখ্য, শনিবারই কোহলীর কোচ রাজকুমার শর্মা জানিয়েছেন, তিনি তাঁর ছাত্রের সঙ্গে কথা বলে উঠতে পারেননি। কারণ, কোহলীর ফোন বন্ধ।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *